Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১৯ ফাল্গুন ১৪২১ বুধবার ৪ মার্চ ২০১৫
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  বিদেশ  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
বস্তাবন্দী টাকার গুঁড়ো, জাল টাকার সন্ধানে রিজার্ভ ব্যাঙ্ককে চিঠি পুলিসের ।। ১১৮-৫৭ক্ক গোহারা মোদি সরকার--পাশে তৃণমূল, ইয়েচুরিদের সংশোধনী পাস ।। মমতাকে আরাবুলের প্রণাম--বিক্ষুব্ধরা ফিরছেন মূল স্রোতে ।। মুকুলকে এড়াচ্ছেন সিদ্ধার্থনাথ--অরুন্ধতী মুখার্জি ।। টিম-ফ্রন্টের নেতা অশোক ।। কলকাতায় আমরাই: মুখ্যমন্ত্রী ।। ফলন বেড়েছে, আলুর দাম বেঁধে দেওয়ার দাবি ।। অমিত: মাত্র ৬০০০ কোটি ঋণ নিয়েছি ।। শচীন, লক্ষ্মণকে মাথায় রেখেই শাস্ত্রী বললেন, অস্ট্রেলিয়ায় কোহলি সেরা ।। গেইলের ওষুধ বলে দিলেন ভারতের প্রাক্তনরা--অগ্নি পান্ডে ।। মুফতির মম্তব্যকে খারিজ মোদির ।। আসছে এফ বি আই
বাংলা

‘চক্রব্যূহে’ সারদা-ত্রিনেত্র

বস্তাবন্দী টাকার গুঁড়ো, জাল টাকার সন্ধানে রিজার্ভ ব্যাঙ্ককে চিঠি পুলিসের

মমতাকে আরাবুলের প্রণাম

মুকুলকে এড়াচ্ছেন সিদ্ধার্থনাথ

টিম-ফ্রন্টের নেতা অশোক

কানে কানে কী কথা হল...

ফলন বেড়েছে, আলুর দাম বেঁধে দেওয়ার দাবি

চিটফান্ড: আলোচনা এখন নয়

উচ্চশিক্ষা সংসদ: বিল এল না

অমিত: মাত্র ৬০০০ কোটি ঋণ নিয়েছি

আজ রাজ্যে ঘূর্ণাবর্তের বৃষ্টি

পঞ্চায়েতের কাজের বরাত নিয়ে গোষ্ঠীসঙঘর্ষ

ছুটির দিনে কাজ হাইকোর্টে বার ও বেঞ্চের সঙঘাত

জয়েন্টে জ্যামার!

চড়-কাণ্ডে অভিযুক্ত কেন বিচার পাবে না

কপ্টার দুর্ঘটনা: ঋতব্রতের প্রশ্নের জবাব দিলেন পারিকর

‘চক্রব্যূহে’ সারদা-ত্রিনেত্র

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

সোমনাথ মণ্ডল

১০০ কোম্পানির ‘চক্রব্যূহে’ কোটি কোটি টাকার লেনদেনের হদিস পেল এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট৷‌ ত্রিনেত্র কনসালটেন্ট প্রাইভেট লিমিটেড থেকে৷‌ কীভাবে হত টাকা পাচার? কয়েক সেকেন্ডের ব্যবধানে ওই ১০০ কোম্পানির মাধ্যেই টাকা লেনদেন করতেন ডিরেক্টরেরা৷‌ টাকা ঘুরতে ঘুরতে কোনও একটি কোম্পানির মাধ্যমে সেই টাকা বেরিয়ে যেত কারও ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে বা কোনও সংস্হার তহবিলে৷‌ রেজিস্ট্রার অফ কোম্পানিজ (আর ও সি)-এর কাছে সংস্হাগুলির বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চেয়েছে ই ডি৷‌ সারদা-কাণ্ড প্রকশ্যে আসার আগেই খোলা হয়েছিল সংস্হাগুলি৷‌ ২০১৪-র সেপ্টেম্বর মাসে থমকে গেছে কোম্পানির ব্যবসা এবং লেনদেন৷‌ ত্রিনেত্র-র ডিরেক্টররাও ওই সংস্হাগুলির ডিরেক্টরের পদে রয়েছেন৷‌ তাঁদের সামাজিক পরিচিতি বা আর্থিক অবস্হা এ-রকম নয় যে, তাঁরা একটি কোম্পানি চালাতে পারবেন৷‌ ত্রিনেত্র-র সঙ্গে কোম্পানিগুলির যোগ রয়েছে৷‌ সারদার যোগসূত্রও মিলছে৷‌ ২০১১ সালের ২৫ এপ্রিল ‘ত্রিনেত্র’ তৈরি হয়৷‌ ব্রিটিশ ইন্ডিয়ান স্ট্রিটে সংস্হার একটি অফিসও রয়েছে৷‌ সংস্হার দুই ডিরেক্টর শশিকাম্ত দাস এবং মনোজ শর্মা৷‌ এই মনোজ আবার ৬৫টি কোম্পানির সঙ্গে জড়িত৷‌ সেই কোম্পানিগুলি ভুয়ো কি না বা সেগুলির মাধ্যমে টাকা সরানো হয়েছিল কি না, সে-বিষয়ে খোঁজ করতে দু’জনকেই তলব করা হতে পারে৷‌ ই ডি-র অনুমান, সারদার টাকা ত্রিনেত্র-র মাধ্যমে কয়েকজন প্রভাবশালীর কাছেও পৌঁছেছে৷‌ খিদিরপুরের কাঞ্চন কলোনিতে দোতলা বাড়িরএকটি ঘুপচি ঘরে থাকেন শশিকাম্ত৷‌ অন্য দিকে তিলজলায় কুষ্টিয়া-লাগোয়া এলাকায় থাকেন মনোজ শর্মা৷‌ কলকাতা থেকে ভিন‍্ দেশ হয়ে সেখান থেকে মুম্বইয়ের একটি বিদেশি ব্যাঙ্কের শাখা হয়ে১ কোটি ৪০ লক্ষ টাকা ঢুকেছিল ‘ত্রিনেত্র কনসালটেন্ট প্রাইভেট লিমিটেড’-এর অ্যাকাউন্টে৷‌ সেই টাকা সারদা গোষ্ঠীর কি না, তা জানতে ওই বিদেশি ব্যাঙ্কের কাছে রিপোর্ট চেয়ে পাঠানো হয়েছিল৷‌ তা ইতিমধ্যেই ই ডি-র হাতে এসেছে৷‌ যে-সংস্হা তিন বছরে লাভের মুখই দেখেনি, সেই সংস্হা হঠাৎ কীভাবে প্রায় ১.৪ কোটি টাকা একটি দলের তহবিলে দান করল! ই ডি সূত্রে খবর, তিন বছরে ত্রিনেত্র-র ব্যালান্স শিটে ওই সংস্হার তরফে কোনও বড় লেনদেন হয়নি৷‌ একটি নির্দিষ্ট সময়ে ২০১৪ সালে প্রায় ১ কোটি ৪০ লক্ষ টাকা তহবিলে জমা পড়ে৷‌ ২০১০-১১ সালের ব্যালান্স শিটে আয় দেখানো হয়েছিল ১৯ হাজার টাকা৷‌ ২০১২-১৩ সালে ১৬ হাজার, ২০১৩-১৪-তে ৩৩ হাজার টাকা৷‌ যে-কোম্পানির আয় ২০১৪-তে এই রকম, সেই সংস্হা কীভাবে প্রায় দেড় কোটি টাকা পেল? শুধু ত্রিনেত্রই নয়, বাকি ৯৯ কোম্পানিরও একই আর্থিক দশা ছিল৷‌ ই ডি-র অনুমান, সারদা গোষ্ঠীর টাকাও ওই কোম্পানিগুলির মাধ্যমে পাচার হয়ে থাকতে পারে৷‌ সারদা-কাণ্ডে তদম্তে নামার পর এই প্রথম এতগুলি সংস্হার সন্দেহজনক লেনদেনের হদিশ পাচ্ছেন তদম্তকারী অফিসাররা৷‌ ষড়যন্ত্র করেও এগুলি খোলা হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে৷‌ অন্য দিকে, মঙ্গলবার আমেরিকার লাস ভেগাসে বিশ্ব বঙ্গ সম্মেলনে সারদার কত টাকা যুক্ত রয়েছে, সে-বিষয়ে খোঁজখবর করতে সংগঠনের এক প্রাক্তন সভাপতিকে জেরা করল ই ডি৷‌ ২০১২ সালে সারদা গোষ্ঠী বিশ্ব বঙ্গ সম্মেলনের টাকা দিয়েছিল৷‌ সুদীপ্তর অভিযোগ, কুণাল ঘোষ এবং প্রাক্তন আই পি এস রজত মজুমদারকে তিনি প্রায় ৪ কোটি টাকা দিয়েছিলেন৷‌ সেই টাকা তাঁরা সিংহভাগই আত্মসাৎ করেছিলেন৷‌ কিন্তু তাঁর এই দাবি অস্বীকার করেন দু’জনেই৷‌ ২০১২ সালের বিশ্ব বঙ্গ সম্মেলনের সভাপতিকেও তলব করতে পারে ই ডি.





kolkata || bangla || bharat || bidesh || editorial || post editorial || khela ||
Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited